অবশেষে এবার মুশফিকের কিপিং নিয়ে বিষ্ময়কর মন্তব্য করলেন দলপতি সাকিব

একপ্রকার ক্ষোভে গ্লাভস ছেড়ে দিয়েছিলেন মুশফিক। তারপর থেকে দীর্ঘ আড়াই বছর তাকে গ্লাভস হাতে দেখা যায়নি। মাঠে থাকলেও তিনি গ্লাভস হাতে উইকেটকিপারে থাকেননি। তবে এবার তাকে দেখা যাবে উইকেট কিপারের বেশে, কারন নুরুল

হাসান সোহান ও লিটন দাসের ইনজুরির কারনে তার কাধে এবার উইকেট কিপিংয়ের সায়িত্ব এসে পরে।তবে মুশফিকের এভাবে ফিরে আশাকে স্বাগত জানিয়েছেন বাংলাদেশ টি-২০ দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। আজ প্রেস ব্রিফিংয়ে

সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়ের সময় মুশফিককে নিয়ে কথা বলেন সাকিব।যেখানে তিনি জানিয়েছেন, কিপার হিসেবে মুশফিক উইকেটের পেছনে থাকলে মাঠে সাকিবের কাজ অনেক সহজ হয়ে যায়। বিশেষ করে অভিজ্ঞ উইকেটরক্ষক

মুশফিক ফিল্ডিংয়ে খেলোয়াড়দের পজিশন ঠিক করে দেয়ায়, মাঠের অন্য পরিকল্পনা নিয়ে ভাবার ফুরসত মেলে সাকিবের।এশিয়া কাপের আগে সাংবাদিক সম্মেলনে মুশফিককে উইকেটকিপিং দেয়া নিয়ে সাকিব বলেন, ‘উইকেটকিপিং যেটা হচ্ছে

যে, উনি কিপিং করলে আমার লাইফটা অনেক ইজি হয়ে যাবে। এটা সবথেকে বড় কারণ হচ্ছে যে, টি-টোয়েন্টিতে সময়টা খুব কম থাকে।সেক্ষেত্রে ফিল্ডিংয়ের অ্যাঙ্গেলসগুলো খুব ইজিলি উনি চেঞ্জ করতে পারে। আমার কাছে শোনারও দরকার নাই।

ফলে আমার লাইফটা অনেক ইজি হয়ে যায়।আমি অন্য দুই একটা বিষয় নিয়ে চিন্তা করতে পারব, ফিল্ডিংয়ের পজিশন নিয়ে সারাক্ষণ চিন্তা করা থেকে। কিংবা ফিল্ডিংয়ের অ্যাঙ্গেল ঠিক আছে কিনা, কারণ এগারোটা প্লেয়ার সবসময় দেখা সম্ভব না।

একমাত্র কিপারই আছে যে, এটা ভালোভাবে দেখতে পারে। আর উনার মতো এত এক্সপেরিয়েন্স কেউ থাকলে আমার জন্য কাজটা সহজ হয়ে যায়।’এছাড়াও এদিন সাকিবের কাছে মাহমুদউল্লাহ এবং মুশফিকের ভবিষ্যৎ সম্পর্কেও জানতে চাওয়া

হয়। বিশেষ করে টি-টোয়েন্টিতে এই দুই ক্রিকেটারের শেষ দেখে ফেলেছিলেন অনেকেই। ধারণা করা হচ্ছিল, এশিয়া কাপের পরিকল্পনায়ও থাকবেন না।তবে সাকিব ঠিকই দলে রেখেছেন দুই অভিজ্ঞ ক্রিকেটারকে। এবার জানালেন, মুশফিক-রিয়াদ দুইজনই বাংলাদেশের ক্রিকেট সিস্টেমের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

সাকিবের ভাষ্যে, ‘উনারা দুইজন খুবই ইম্পর্ট্যান্ট পার্ট এই সিস্টেমের। উনারা এটা সম্বন্ধে অবগত। উনারা জানে উনাদের দায়িত্বটা কী, উনাদের চ্যালেঞ্জ গুলো কী। উনারা জানে, কোন সিচুয়েশনে উনারা আছেন। আমার আলাদা করে কিছু বলার

নাই।উনারা এতদিন ধরে খেলার পরে উনারা খুব ভালো করে পুরো সিচুয়েশন সম্বন্ধেই সচেতন। আমরাও জানি আমরাও কি আশা করছি উনাদের থেকে। আর যেটা বলেছি, উনারা অনেক ইম্পর্ট্যান্ট আমাদের সিস্টেমের জন্য।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *