এমবাপ্পের ছুটি কাটিয়ে ফেরার ম্যাচে লজ্জাজনক কান্ড করে বসলো মেসি নেইমাররা!

রেনের মাঠে ব্যর্থতার বৃত্তে ঘুরপাক খাওয়া পিএসজি লিগ ওয়ানে রোববার রাতে হেরেছে ১-০ গোলে। লিগে সবশেষ তিন ম্যাচের মধ্যে দুটি হারল ক্রিস্তফ গালতিয়ের দল। মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা

মিলিয়ে তাদের হার এই দুটিই। রেনের মাঠে লিগে এই নিয়ে সবশেষ চার ম্যাচের তিনটিতে হারের তেতো স্বাদ পেল প্যারিসের দলটি, অন্যটি ড্র। লিওনেল মেসি ও নেইমারকে শুরুর একাদশে রাখলেও

ছুটি কাটিয়ে ফেরা কিলিয়ান এমবাপেকে বেঞ্চে রাখেন পিএসজি কোচ। বিরতির পর মাঠে নেমে দলকে ম্যাচে ফেরানোর সুবর্ণ সুযোগ হারান ফরাসি তারকা। জানলুইজি দোন্নারুম্মা দারুণ কয়েকটি

সেভ না করলে ব্যবধান আরও বাড়তে পারত। ২০তম মিনিটে গোলের জন্য প্রথম শট নিতে পারে পিএসজি। বক্সের সামনে থেকে মেসির বাঁ পায়ের সেই শট ক্রসবারের ওপর দিয়ে উড়ে যায়। ২৮তম

মিনিটে দোন্নারুম্মার দৃঢ়তায় বেঁচে যায় সফরকারীরা। কাছ থেকে কালিমুন্দোর জোরাল ভলি ফিরিয়ে দেন এই ইতালিয়ান গোলরক্ষক। ৩৮তম মিনিটে প্রায় ২০ গজ দূর থেকে লভরো মাইয়ের শটও

ঝাঁপিয়ে ঠেকান তিনি। বিরতির আগে ভালো একটি সুযোগ তৈরি করে পিএসজি। বক্সের ভেতর মেসির প্রচেষ্টা প্রতিহত হয় রক্ষণে। প্রথমার্ধে স্বাগতিক গোলরক্ষকের কোনো পরীক্ষা তারা নিতে

পারেনি। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে দানিলো পেরেইরার জোরাল হেড ফিরিয়ে দেন রেনের গোলরক্ষক। যদিও গোল মিলত না, অফসাইডের পতাকা তোলেন লাইন্সম্যান। ৫৬তম মিনিটে জোড়া পরিবর্তন

আনেন গালতিয়ে। উগো একিতিকে ও নর্দি মুকিয়েলের জায়গায় নামান এমবাপে ও আশরাফ হাকিমিকে। দুই মিনিট পর আরেকবার পিএসজির ত্রাতা দোন্নারুম্মা। মাইয়ের ফ্রি-কিক ঝাঁপিয়ে

ঠেকান তিনি। ৬৫তম মিনিটে তিনি আর পারেননি। বাঁ দিকের বাইলাইনের কাছাকাছি থেকে সতীর্থের কাট-ব্যাকে বাঁ পায়ের শটে রেনকে এগিয়ে নেন হামারি ত্রাওরে। পাঁচ মিনিট পর সুযোগ নষ্ট

করেন এমবাপে। মেসির উঁচু করে বাড়ানো বল ধরে বক্সে ঢুকে পড়েন তিনি। সামনে একমাত্র বাধা গোলরক্ষক, কিন্তু অবিশ্বাস্যভাবে উড়িয়ে মারেন তরুণ ফরোয়ার্ড। ৮২তম মিনিটে বক্সের ভেতর থেকে

হুয়ান বের্নাতের জোরাল শটে বল এক হাতে ক্রসবারের ওপর দিয়ে পাঠান রেনের গোলরক্ষক। ম্যাচে লক্ষ্যে পিএসজি একমাত্র শট এটিই। পুরো ম্যাচে গোলের জন্য পিএসজির সমান ৮টি শট নিয়ে

৬টিই লক্ষ্যে রাখে রেন। এই পরিসংখ্যানেই ফুটে উঠেছে দুই দলের পার্থক্য। ১৯ ম্যাচে ৪৭ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে পিএসজি। সমান ম্যাচে ৪৪ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে লঁস। তাদের চেয়ে ২ পয়েন্ট কম

নিয়ে তিনে মার্সেই। সমান ৩৭ পয়েন্ট নিয়ে মোনাকো চারে ও রেন পাঁচ নম্বরে আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *