চরম দু-সংবাদঃ কাতার বিশ্বকাপে নিয়েও শঙ্কা আর্জেন্টাইন তারকা ডি মারিয়ার!

আনহেল ডি মারিয়া জুভেন্তাসের হয়ে অভিষেকটা রাঙিয়েছিলেন ভালোই। গোল করেছিলেন, সতীর্থকে দিয়ে করিয়েও ছিলেন। তবে এরপরই চোট বাধা হয়ে দাঁড়ায় তার, ছেড়ে যেতে হয় মাঠ।

সেই চোট কাতারে অনুষ্ঠেয় ফুটবল বিশ্বকাপ নিয়েও শঙ্কা সৃষ্টি করেছে তার জন্য। সাসুওলোর বিপক্ষে সিরি’আ অভিষেক হয় ডি মারিয়ার। গোল করতে আর্জেন্টাইন এই তারকা সময় নেন ২৫

মিনিট। বাম পায়ের দারুণ এক ভলিতে গোলের খাতায় নাম লেখান তিনি। এরপর দুসান ভ্লাহোভিচের গোলেও বড় অবদান রেখেছেন তিনি। তবে এরপরই আসে সেই চোট। অ্যাডাক্টরের

চোট নিয়ে কাতরাতে কাতরাতে মাঠের বাইরে যেতে হয় তাকে। ম্যাচ শেষে জুভেন্তাস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে চোটের ভয়াবহতা। জানিয়েছে অ্যাডাক্টরের চোটটা নিয়ে এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না।

দশ দিন পর আবারও একে পুনর্মূল্যায়ন করা হবে। তখন এই বিষয়ে আরও পরিষ্কার কিছু জানা যাবে। এই চোট নিয়ে অবশ্য কোচ ম্যাসিমিলানো অ্যালেগ্রি জানিয়েছেন, ‘আমি খুব বেশি চিন্তিত নই।

আমরা দেখব ফলাফলটা কী দাঁড়ায়। দুর্ভাগ্যজনকভাবে এমন হয়েই থাকে ফুটবলে।’ এরপর অ্যালেগ্রি জানালেন, এমন চোট নাকি এক সপ্তাহ আগেও ছিল ডি মারিয়ার! নিজের ভুলও স্বীকার করে

নিয়েছেন তিনি। বলেছেন, ‘তার অ্যাডাক্টরের চোটটা এক সপ্তাহ আগেও ছিল। আমরা যখন ৩-০ গোলে এগিয়ে ছিলাম, তখনই সম্ভবত তাকে তুলে নেওয়া উচিত ছিল আমার। কিন্তু সে সেখানে

ম্যাচটা উপভোগ করছিল।’  জুভেন্তাস জানিয়ে দিয়েছে ১০ দিন পর পুনর্মূল্যায়ন করা হবে তার এই চোট। যার মানে দাঁড়াচ্ছে, সিরি’আতে অন্তত আগামী দুই ম্যাচের জন্য তাকে পাবে না জুভেন্তাস।

সাম্পাদোরিয়া আর রোমার বিপক্ষে ম্যাচে দেখা যাবে না তাকে। যদি ১০ দিন পরই মাঠে নামার অনুমতি পান, তাহলে ৩১ আগস্ট স্পেৎজিয়ার বিপক্ষে মাঠে দেখা যাবে তাকে। এখন প্রশ্ন উঠতে

পারে বিশ্বকাপের বাকি আছে আরও তিন মাসেরও বেশি সময়, ডি মারিয়া তো এই সময়ে চোট কাটিয়ে উঠতেই পারেন! তা পারেন বটে, কিন্তু যা কোচ লিওনেল স্ক্যালোনিকে ভাবাতে পারে, সেটা

হলো ডি মারিয়ার চোটপ্রবণতা। পায়ের পেশিতে চোট নিয়ে ক্যারিয়ারের একটা বড় সময় ভুগেছেন তিনি। সেই চোটের সমস্যাই আবারও ফিরে ফিরে আসছে ডি মারিয়ার কাছে। বিশ্বকাপেও এমন

কিছুর শঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না তাই। তার ওপর এই চোট জুভেন্তাসে ডি মারিয়ার মানিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়ায় আরেকটু বাধা দিল বৈকি! যার ফলে তার পারফর্ম্যান্সেও এর খানিকটা প্রভাব পড়বে

বৈকি! বিশ্বকাপের সম্ভাব্য স্কোয়াডের অন্যতম অভিজ্ঞ এই খেলোয়াড়ের এমন বাধায় পড়লে কোচ স্ক্যালোনিকে তা দুশ্চিন্তাই উপহার দেওয়ার কথা। শুধু সুস্থ থাকা নয়, পারফর্ম্যান্সও যে মাথায়

রাখতে হবে তাকে! আগামী অক্টোবরের শুরুতে স্কোয়াড ঘোষণা করবেন স্ক্যালোনি। ২০২২ বিশ্বকাপের অন্যতম ফেভারিট ধরা হচ্ছে কোপা আমেরিকা চ্যাম্পিয়নদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *