দীর্ঘ ৩০ বছর পর এই প্রথম অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাঁচ টেস্টের সিরিজ খেলবে ভারত!

চারদিকে টি-টোয়েন্টি লিগে রমরমা দেখা গেলেও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ম্যাচের সংখ্যা কমছে না। উল্টে বেড়ে গেল আগামী দিনে অনেক বেশি ক্রিকেট খেলতে হবে রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলীদের।

কারণ আইপিএলের জন্য যেরকম বাড়তি সময় দিয়েছে আইসিসি, তেমনই আন্তর্জাতিক ম্যাচের সংখ্যাও বাড়ছে। ২০২৩ থেকে ২০২৭ সালের যে ফিউচার ট্যুরস প্রোগ্রাম (এফটিপি) তৈরি

করা হয়েছে, তাতে ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি লিগ এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেট— দু’টিকেই গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। আইপিএল আয়োজনের জন্য বেশি সময় দাবি করে প্রস্তাব গিয়েছিল আইসিসি-র কাছে।

বর্ধিত সময়ে মান্যতা দিল আইসিসি। আইপিএল-এর জন্য অতিরিক্ত সময় দেওয়া হয়েছে। ফলে বিসিসিআইয়ের ইচ্ছে অনুযায়ী আড়াই মাসের আইপিএল হতে সমস্যা নেই। এমনকী ইংল্যান্ড

এবং অস্ট্রেলিয়া নিজেদের ঘরোয়া প্রতিযোগিতা ‘দ্য হানড্রেড’ এবং ‘বিগ ব্যাশ লিগের’ জন্যেও সময় রেখেছে। আইপিএলের জন্য বাড়তি সময় দিয়েও আন্তর্জাতিক ম্যাচের সংখ্যা বাড়িয়ে দিয়েছে

আইসিসি। আগামী দিনে দেশের হয়েও ঠাসা সূচি রয়েছে। সে ক্ষেত্রে ভবিষ্যতে বাড়তে পারে ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে খেলানোর প্রবণতাও। আন্তর্জাতিক ম্যাচের সংখ্যা অনেকটাই বেড়েছে। ফিরছে ত্রিদেশীয়

সিরিজও। বুধবার ২০২৩ থেকে ২০২৭ সালের সূচি প্রকাশ করা হয়েছে। এই সময়কালে দু’বার অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে খেলবে ভারত। ৩০ বছর পর এই প্রথম পাঁচ টেস্টের সিরিজ হতে চলেছে। ২০২৪-২৫

মরসুমে ভারত যাবে অস্ট্রেলিয়ায়। পরের বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে, অর্থাৎ ২০২৭-এর জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে অস্ট্রেলিয়া আসবে ভারতে। যে চার বছরের এফটিপি প্রকাশ হয়েছে, সেখানে

আইসিসি-র ১২টি দেশ সব মিলিয়ে ৭৭৭টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলবে। এর মধ্যে ১৭৩টি টেস্ট, ২৮১টি এক দিনের ম্যাচ এবং ৩২৩টি টি-টোয়েন্টি রয়েছে। প্রসঙ্গত, এ বারের এফটিপি-তে আন্তর্জাতিক

ম্যাচের সংখ্যা ৬৯৪। ২০২৫-এর ফেব্রুয়ারিতে পাকিস্তানে গিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলবে নিউজিল্যান্ড এবং দক্ষিণ আফ্রিকা। সে বছরই জুলাইয়ে জিম্বাবোয়েতে টি-টোয়েন্টির ত্রিদেশীয়

সিরিজ খেলতে যাবে এই দুই দল। ২০২৬-এর অক্টোবর-নভেম্বরে আবার পাকিস্তানে হবে ত্রিদেশীয় সিরিজ। খেলবে ইংল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা এবং আয়োজক দেশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *