পাক-ভারত মহারণে, ভারতকে হারিয়ে মধুর প্রতিশোধ পাকিস্তানের

গ্রুপ পর্বের দেখায় পাকিস্তানকে হারিয়েই এশিয়া কাপের মিশন শুরু করেছিল ভারত। সপ্তাহ খানেকের ব্যবধানে সেই হারের ক্ষত ভুলে, ভারতকে হারিয়েই সুপার ফোরে যাত্রা শুরু পাকিস্তানের। ক্যাচ এবং ফিল্ডিং মিসের প্রতিযোগিতায় এদিন দু’দলই দিয়েছে সমানতালে পাল্লা। তবে শেষ পর্যন্ত মাশুল গুনতে হয়েছে রোহিতদেরই।

দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে এদিন টস হেরে ব্যাট করে, বিরাট কোহলির হাফ সেঞ্চুরিতে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৮১ রানের পাহাড় গড়ে ভারত। জবাবে, মোহাম্মদ রিজওয়ানের হাফ সেঞ্চুরি ও মোহাম্মদ নওয়াজের ক্যামিওতে জয়ের পথে ছিল পাকিস্তান। তবে ম্যাচের শেষ দারুণ লড়াই করে ভারতীয় বোলাররা। যদিও হয়নি শেষ রক্ষা৷

শেষ পর্যন্ত ৫ উইকেট ও ১ বল হাতে রেখেই তা টপকে যায় পাকিস্তান। এই জয়ে ফাইনালের পথে এক ধাপ এগিয়ে গেল বাবর আজমের দল।
ভারত রানের পাহাড় গড়লেও, দুবাইয়ের উইকেটে সেটা টপকানো সহজই ছিল। তবে শুরুতেই অধিনায়ক বাবর আজমের বিদায়ের পর, ফখর জামানের ধীরগতির ব্যাটিং চাপে ফেলেছিল পাকিস্তান।

একপ্রান্ত রিজওয়ান রানের চাকা সচল রাখলেও, অন্যপ্রান্তে এদিন কাউকে না কাউকে খেলতেই হতো ক্যামিও। সেই বাজিতে আজ পাকিস্তান হয়েছেও বেশ সফল৷ দলীয় ৬৩ রানে ফখরের বিদায়ের পর, ব্যাটিংয়ে আসেন মোহাম্মদ নওয়াজ।মাঠে নেমেই এই পাক ব্যাটার চড়াও হয়ে উঠেন ভারতীয় বোলারদের উপর।

তৃতীয় উইকেট জুটিতে রিজওয়ানকে নিয়ে গড়েন ঝড়ো হাফ সেঞ্চুরি। নওয়াজের ইনিংসের স্থায়িত্ব এদিন মাত্র ২০ বল হলেও, করে দিয়েছিলেন কাজের কাজটাই। ৬ চার ও ২ ছক্কায় তাঁর করা ৪২ রান পাকিস্তানের জয়টা করে দেয় সহজ। এরপর হাফ সেঞ্চুরি তুলে দলকে জয়ের কক্ষপথে রাখেন রিজওয়ান।

শেষ দিকে রিজওয়ানকে ফিরিয়ে ভারতকে ম্যাচে ফেরানোর চেষ্টা করেন হার্দিক পান্ডিয়া। জয়ের জন্য শেষ ৩ ওভারে পাকিস্তান প্রয়োজন ছিল ৩৪ রান। ইনিংসের ১৮তম ওভারে রবি বিষ্ণুই’র করা তৃতীয় বলে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দেন আসিফ আলী। তবে সেই সহজ ক্যাচ ধরতে ব্যর্থ হন আর্শদীপ সিং।

কার্যত সেখানেই ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় ভারত। এরপর ভুবনেশ্বরের করা ১৯তম ওভারে ১৯ রান তুলে জয়ের দারপ্রান্তে পৌঁছে যায় পাকিস্তান।শেষ ওভারে আসিফ আলীকে ফিরিয়ে, আর্শদীপ শাপমোচনের চেষ্টা করলেও হয়নি শেষ রক্ষা। এক বল হাতে রেখেই জয় তুলে নেয় পাকিস্তান। ৬ চার ও ১ ছক্কায় ৫১ বলে ৭১ রানের ইনিংস খেলেন মোহাম্মদ রিজওয়ান।

আসিফ আলী ১৬ ও খুশদিল শাহ করেন ১৪ রান।এর আগে টস হেরে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৮১ রানের পাহাড় গড়ে ভারত। ৪ চার ও ১ ছক্কায় ৪৪ বলে বিরাট কোহলি খেলেন ৬০ রানের ইনিংস। এছাড়া দুই ভারতীয় ওপেনার রোহিত শর্মা ও কেএল রাহুল করেন ২৮ রান করে। দীপক হুডার ব্যাট থেকে আসে ১৬ রান। পাকিস্তানের পক্ষে ২ উইকেট নেন শাদাব খান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *