মাত্র পাওয়াঃ মুশফিকের বিদায়ের পরে বাংলাদেশ ক্রিকেটের আসল সত্যটা জানালেন রাজ্জাক

ক্রিকেট মাঠের ২২ গজে তারা একই সঙ্গে খেলেছেন। ২০০৭ এবং ২০১১ সালের বিশ্বকাপে মুশফিকুর রহিম আর আব্দুর রাজ্জাক একসাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে খেলেছিলেন। যা সারা বিশ্ব দেখেছে।বাঁ-হাতি স্পিনার আব্দুর রাজ্জাক আন্তর্জাতিক ক্রিকেট এবং ঘরোয়া ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়ে এখন

জাতীয় দলের নির্বাচক হিসাবে আছেন। আর মুশফিকুর রহিম এখনো খেলছেন তবে সদ্য টি-টোয়েন্টি ফরম্যাট থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন এই নিরভরজন্ন ক্রিকেটার।সাবেক সহযোদ্ধা মুশফিকের এই সরে দাঁড়ানোকে কিভাবে দেখছেন আব্দুর রাজ্জাক? সোমবার রাজ্জাক নিজ মুখেই দিয়েছেন এর উত্তর।

জাতীয় দলের এ সাবেক বাঁ-হাতি স্পিনার মনে করেন, মুশফিক মাঠ থেকে বিদায় নিতে পারলে খুব ভাল হতো।কেন এমনটা মনে হয়েছে তার? সে ব্যাখ্যাও আছে। রাজ্জাকের কথা, ‘বড় মাপের বা যে কোনো খেলোয়াড়, জাতীয় দলে খেলেছে তারা সবাই দেশের জন্য কিছু না কিছু করেছে।

তারা আসলে আনুষ্ঠানিকভাবে অবসরটা ডিজার্ভ করে।’তবে রাজ্জাক মানছেন, ‘এটা যার যার ব্যক্তিগত মতের ওপর নির্ভর করে। এটা আসলে যার যার ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত।’তবে রাজ্জাক মনে করেন, ‘মুশফিক যেহেতু এশিয়া কাপ শেষে দেশে ফিরে অবসরের ঘোষণা দিয়েছে, তাই এশিয়া কাপের আগে

বোর্ডকে, টিম ম্যানেজমেন্টকে জানিয়ে দিতে পারতো যে এশিয়া কাপই আমার শেষ। আমি ওই আসরেই অবসর নেব।’‘আমার কাছে মনে হয়েছে ও যেহেতু বলবেই তাই এশিয়া কাপের মধ্যে বলে দিলেও খারাপ কিছু হতো না। তাহলে হয়তো আমাদের দেশেও এ রকম একটা কথা চালু হত।

আমরা কিন্তু দেখি যে বেশিরভাগ দেশের বড় বড় খেলোয়াড় মাঠের মধ্যেই থ্যাঙ্কইউ বলে গেছে। তো ও রকম কিছু হলে কিন্তু ভালো হয়। সবাই একসঙ্গে জানতে পারলো। বিশ্ব জানলো, আন্তর্জাতিক মিডিয়াগুলো জানলো।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *