যতই দিন যাচ্ছে জল ততই ঘোলা হচ্ছে, এবার সাকিবকে নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিলেন সুজন

বাংলাদেশ জাতীয় দলের সব থেকে আলোচিত খেলোয়ারের নাম সাকিব আল হাসান। আলোচিত বলার কারন, ক্রিকেট ইতিহাসে তিনি তার কর্মকান্ডে বেশ কয়েকবার আলোচনায় আসেন। বিশেষ

করে ২০১৯ সালে সাকিব আইসিসি থেকে ১ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হন। এর পরও তিনি নানা কর্মের কারনে বারবার আলোচনাতে আসেন। গেলো বছর ডিবিএল লীগে আম্পায়ারের সাথে বাকবিতন্ডায়

জরিয়ে নিজেকে ফের আলোচনায় আনেন সাকিব। এবার এশিয়া কাপের জন্য দল ঘোষনা করার আগেই তিনি বেট উইনারের সাথে চুক্তিতে আসার কারনে তাকে নিয়ে তুমুল আলোচনা হয়। সেই

সাথে বিসিবির সাথে তার চলে মনমালিন্য। তবে একে একে নিয়ম ভঙ্গ করার পরেও তাকে পুরস্কৃত করেছে বিসিবি। তাকে এশিয়াকাপ সহ আগামি টি-২০ বিশ্বকাপ পর্যন্ত বাংলাদেশ টি-২০ দলের অধিনায়ক

করা হয়েছে। এ নিয়েও সামাজিক গনোমাধ্যমে চলেছে তুমুল আলোচনা। তবে এই আলোচনা সমালোচনার জবাব দিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন। তিনি

সবাইকে পরিষ্কার ভাবে জানিয়ে দিয়েছেন সাকিবই জাতীয় দলের অধিনায়ক হিসেবে থাকছেন। কারন বিসিবির কাছে সাকিব ব্যতীত কোনো চয়েজ নেই। টি-২০ তে ভালো কিছু করার অভিপ্রায়ে

সাকিবকে নেতৃত্ব দেওয়া হয়েছে জানিয়ে গতকাল মিরপুর স্টেডিয়ামে সুজন বলেন, ‘আমরা ভালো করছি না বলেই চেষ্টা করছি যে কীভাবে ভালো করা যায়। সাকিব ফিরেছে-এটা খুবই ইতিবাচক

দিক। সবাই একবাক্যে স্বীকার করব যে, এই ফরম্যাটে সাকিব সবচেয়ে অভিজ্ঞ। এই ফরম্যাটে সে বিশ্বব্যাপী অনেক ক্রিকেট খেলে।’ জিম্বাবুয়ে সফরের আগেও টি-২০ তে অধিনায়ক ছিলেন

মাহমুদউল্লাহ। তাকে সরিয়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে নেতৃত্ব দেওয়া হয় নুরুল হাসান সোহানের হাতে। মূলত সাকিবের কাছে ফেরার জন্যই এই পদক্ষেপ নিয়েছিল বিসিবি। নেতৃত্ব বদলের প্রক্রিয়ায়

সাকিব, মাহমুদউল্লাহ দুজনের সঙ্গেই আলাপ করেছিল বিসিবি। টিম ডিরেক্টর বলেন, ‘রিয়াদের সঙ্গেও কথা হয়েছে সাকিবের সাথেও কথা হয়েছে। আমি যেহেতু এখন দলের সঙ্গে জড়িত কথা তো

হবেই। কথা না বলার কিছু নাই। বোর্ডের একটা অবস্থান ছিল যে সাকিব যেহেতু এই ফরম্যাটে বেশি অভিজ্ঞ, ওর অনেক ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে খেলার অভিজ্ঞতা আছে। ওর পারফরম্যান্স সব

মিলিয়ে আমাদের মনে হয়েছে সেই-ই সেরা পছন্দ সত্যি কথা বলতে গেলে। বিষয়টা এমন না যে রিয়াদ খারাপ, তবে হয়তো রিয়াদের চেয়ে সাকিবকে সেরা বিকল্প মনে হয়েছে।’ অধিনায়ক যে-ই

হোক, দিন শেষে দেশের ক্রিকেটের উন্নতিই মূল উদ্দেশ্যে বিসিবির। সুজন বলেন, ‘দিন শেষে আমরা সবাই বিসিবিতে কাজ করি বাংলাদেশ ক্রিকেটকে ভালো করার জন্য। এখানে আমাদের

কোনো স্বার্থ নেই, সাকিবও আমার কিছু না রিয়াদও আমার কিছু না। সাফল্যটা কীভাবে আসবে কার হাত ধরে আসবে আমরা জানি না। আমি বিশ্বাস করি সাকিব সেরা বিকল্প।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *