রোহিত-বাবরের মতো ভুল করতে চান না, সাকিব

নিয়মটা চালু হয়েছে এ বছরের জানুয়ারি থেকে। প্রতিটি ইনিংসেই শেষ ওভারের প্রথম বলটি করার জন্য একটি নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দেওয়া হয়।
নির্ধারিত সময়ে শেষ ওভার শুরু করতে না পারলে তখন যত ওভার বাকি থাকে, তার পুরোটা সময় বল করতে হয় বৃত্তের ভেতর পাঁচ ফিল্ডার রেখে। আইসিসি এই শাস্তির নাম দিয়েছে ‘ইন-ম্যাচ পেনাল্টি’।

এবারের এশিয়া কাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে দুই ইনিংসেই ইন-ম্যাচ পেনাল্টির ঘটনা ঘটেছে। ভারতের অধিনায়ক রোহিত শর্মা ও পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজমকে ডেথ ওভারে ফিল্ডিং করতে হয় ৩০ গজের ভেতর পাঁচ ফিল্ডার রেখে।

ক্ষতিটা বেশি হয়েছে বাবরদেরই। রান তাড়ার হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে শেষ ৩ ওভারে একজন ফিল্ডারকে সীমানায় রাখতে পারেনি পাকিস্তান। ভারতও সে সুবিধা নিয়ে ম্যাচ জিতেছে। পাকিস্তানও অবশ্য এই একই সুবিধা পেয়েছে নিজেদের ব্যাটিংয়ে। তখন ভারতের অধিনায়ক রোহিতকেও শাস্তিস্বরূপ ৩০ গজের মধ্যে একজন ফিল্ডার বেশি রেখে বোলিং করাতে হয়।

বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান এই ভুল করতে চান না। ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিংয়ের পাশাপাশি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বোলিং শেষ করাও আছে তাঁর প্রস্তুতির মধ্যে। অধিনায়কের ডাকে সাড়া দিয়ে এগিয়ে এসেছেন বোলার ও ফিল্ডাররা। প্রত্যেকেই চেষ্টা করছেন ‘ইন-ম্যাচ পেনাল্টি’ এড়াতে।

দুবাইয়ে আসার আগে ২১ ও ২২ আগস্ট মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে নিজেরা ভাগ হয়ে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। একটাতে বোলাররা ওভার শেষ করেছিলেন নির্ধারিত সময়ের সাত মিনিট আগে, অন্যটি ছয় মিনিট আগে। আম্পায়ারদেরও সময়ের ব্যাপারে কড়াকড়ি হওয়ার অনুরোধ জানান সাকিব নিজেই। কাল সেই প্রস্তুতি ম্যাচের উদাহরণ টেনে এক আম্পায়ার বলছিলেন, ‘সাকিব আমাদের বলছিল, একটুও ছাড় দেবেন না। আমি ইনিংস নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করতে চাই।’

সাকিবের কড়াকড়িতে দলের বাকিরাও সতর্ক হচ্ছেন। ফাস্ট বোলার ইবাদত হোসেনের কথাই ধরুন। লম্বা রানআপের জন্য এই পেসারের সময় একটু বেশিই লাগে। আজকাল তিনিও তিন-সাড়ে তিন মিনিটে ওভার শেষ করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *