শঙ্কায় শোয়েব আখতারের রেকর্ড! বিপিএলে ১৫০+ গতিতে বল করে সবাইকে হতভম্ব করলো বাংলাদেশি তরুন পেসার, দেখুন ভিডিও

বাংলাদেশে পেস বোলিংয়ের জাগরন ঘটছে এই কথা বললে ভুল বলা হবে না।আর সেই জাগরনের নতুন সংযোজন নাহিত রানা।বিপিএল অভিষেকে টানা ১৪৮+ কি.মি,-এর বেশি গতিতে বল করে

তাক লাগিয়ে দিয়েছেন এই তারকা। আর একটু হলেই তার বলের গতি পোছে যেত ১৫০ কি.মিটারের। ১ম ম্যাচে ২৪ টা লিগাল ডেলিবারির মধ্যে ১৭টা বলেই ১৪০+ গতির বল করে সবাইকে তাক

লাগিয়ে দিয়েছে নাহিদ রানা। সর্বচ্চ গতি ছিল ঘন্টায় ১৪৮ কি.কি.। ডান হাতি এই পেস বলারের বয়স মাক্র ২০ বছর। দীর্ঘ দেহি কিন্তু লিকলিকে গড়রেন এক বলার।দৌড়ে এসে জীবনের ১ম টি-২০

ম্যাচের ১ম বলেই করে বসলেন নো-বল।পরের বলেই বোল্ড করে দেন এলেক্র বেলকে।তবে সেটা ছিল ফ্রিহিট বল। এর পর যেন ব্লেকের উপর আগুনের ঝড় চালাতে থাকেন রান।ওভারের পরের

সব গুলো বলই করেন ১৪০+ গতিতে।সেই ওভারে তার সর্বচ্চ গতি ছিল ১৪৬ কি.মি.।২য় ওভার বলেএসে রানা যেন আরো একধাপ উপরে। এই ওভারের ৩টি বলই করেছেন ১৪৬ কি.মিতে ৩য়

বলটি করেছেন নিজের সর্বচ্চ গতি দিয়ে সেটি ছিল ১৪৮ কি.মি।৩য় ওভারে আবার বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দেন তিনি।৬ বলের মধ্যে ৩ টি করেন স্লোয়ার।আর ৪র্থ ওভারে ৫টি করেন ১৪০+ এর উপরে।

শেষ পর্যন্ত সেই ম্যাচে রানা ৪ ওভারে ২০ রান দিয়ে ১ টি উইকেট তুলে নেন।ডান হাতি এই পেস বলার রাজশাহী থেকে উঠে এসেছেন।ক্রিকেটের সাথে তার যুক্ত চমক জাগানোর মতোই। ২০২০ সাল

পর্যন্ত বল হাতে নেওয়ার সুয়োগ পাননি ।তিন বছরের মাথায় খেলছেন বিপিএল। আপনার চেহারা থেকে কিভাবে 15 বছর কমিয়ে ফেলবেন তার গোপন সূত্র Dr. Skin-Care ছোট বেলা থেকে রাবার

ও টেনিস বল দিয়ে খেলা শুরু করছেন । পেশাদার ক্রিকেটার হওয়া সপ্ন ছিলো,তবে পরিবারের সর্ত ছিলো আগে এস এস সি পরিক্ষায় পাশ করতে হবে,তা হলেই তাকে ভর্তি করা হবে ক্রিকেট একাডেমিতে।

২০২০ সালে এস এস সি পাশ করে নিজের সপ্নের পথে এক ধাপ এগিয়ে যান রানা। তাকে ভর্তি করিয়ে দিয়া হয় রাজশাহি একটি ক্রিকেট একাডিমিতে। একটি অনলাইন সংবাদ মাধ্যেমের কাছে

জানিয়েছে রানা নিজেই। সেই একাডেমিতে ব্যাটারদেরকে বলকরতেন রানা। সে খানে তার গতি দেখে একটা প্র্যাকটিস ম্যাচ খেলানো সিন্ধান্ত নেওয়া হয়। এর পর সেখান থেকেই পাঁ রাখেন প্রথম

শ্রেনির ক্রিকেটে। ২০২২ সালে অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপে স্টান বাই হিসেবে ছিলেন এই বলার।৩ বছরে রানা অনেকটা সক্ষম হয়েছে নিজের দিকে আলো কেরে নিতে। Video Player 00:00 01:43 সেটা

নিজের খেলা ও গতি দিয়ে।সবশেষ ৩ ম্যাচে ঢাকা-বলিশাল ও খুলনার বিপক্ষে নিয়েছে ৫ উইকেট।তার বয়স মাত্র ২০ বছর।যত্ন নিলে তিনি হয়ে উঠতে পারেন বাংলাদেশের সবথেকে গতিময় বলার।

তমনি হয়ে উঠতে পারেন দেশের বড় সম্পদও।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *