‘নিজ চোখে যা দেখলাম মাকে আর ভালোবাসতে পারব না’ - সোনার-বাংলা

‘নিজ চোখে যা দেখলাম মাকে আর ভালোবাসতে পারব না’

‘নিজ চোখে যা দেখলাম মাকে আর ভালোবাসতে পারব না’

‘আমরা মাকে আগে খুব ভালো জানতাম। নিজ চোখে যা দেখতে হলো তাতে পৃথিবীর আর কোনও সন্তানই মাকে

এভাবে বিশ্বাস করতে ও ভালোবাসতে পারবে না।’ এসব কথাই বললো ঢাকার ধামরাইয়ে পরকীয়া দেখে ফেলায় তিন

সন্তানকে বঁটি দিয়ে গলা কেটে হত্যাচেষ্টার শিকার শিশুরা। গেলো শুক্রবার দিনগত রাত দুইটার দিকে উপজেলার

সুয়াপুর ইউনিয়নের কুটিরচর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। হত্যা চেষ্টাকারী মা ওই এলাকার প্রবাসী আনোয়ার হোসেনের স্ত্রী।

আনোয়ার হোসেন ২০২০ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি কাতার যান। ksrm৮০% পর্যন্ত ডেটা সংরক্ষণ করে অ্যাপে ছবিগুলি

দেখুন। দেশজুড়ে | আরও খবর ভিকটিম শিশুরা হলো আবির হোসেন (১২), আরী হোসেন মিতু (১০) ও মেয়ে আমেনা

আক্তার (১০)। স্থানীয়দের মাধ্যমে জানা যায়, ওই প্রবাসীর স্ত্রী মানিকগঞ্জ সদর থানার বাররারচর গ্রামের মো. রাশেদুল

ইসলাম নামে দুবাই ফেরত এক যুবকের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন। রাশেদুলকে ধর্ম ভাই পরিচয় দিয়ে মাঝে

মধ্যেই নিজের শয়নকক্ষে রাত্রী যাপন করতেন। বিষয়টি প্রতিবেশীদের দৃষ্টিগোচর হয়। গেলো শুক্রবার দিনগত রাত

দুইটার দিকে প্রবাসীর স্ত্রী ও দুবাই ফেরত ওই যুবককে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলে তার তিন সন্তান। পরে বিষয়টি

প্রবাসী স্বামী জেনে যাওয়ার ভয়ে তিন সন্তানকে ধরে বঁটি দিয়ে গলা কেটে হত্যাচেষ্টা করেন তাদের মা। এ সময় তিন

সন্তান বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন লাঠিসোটা নিয়ে এগিয়ে এসে তাদের রক্ষা করে। এ

ব্যাপারে তদন্তকারী কর্মকর্তা আব্দুস সালাম গণ্যমাধ্যমকে বলেন, বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। সরেজমিন পরিদর্শন

করেছি। বিষয়টি গভীরভাবে তদন্তসাপেক্ষে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে প্রবাসীর স্ত্রী বলেন, আমার

স্বামী মিথ্যা অপবাদ দিয়ে আমার ওপর অমানসিক নির্যাতন করেছে। আমি এখনও অনেক অসুস্থ। তাই বেশি কথা

বলতে পারছি না। আমি সুস্থ হয়ে স্বামীর বিরুদ্ধে আইনের আশ্রয় নেব।

You might also like