প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর ভেঙে পড়ল কয়েক ঘণ্টা পর ! - সোনার-বাংলা

প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর ভেঙে পড়ল কয়েক ঘণ্টা পর !

প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর ভেঙে পড়ল কয়েক ঘণ্টা পর !

বরগুনায় মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া দুর্যোগ সহনশীল ঘরের দেয়াল নির্মাণের কয়েক ঘণ্টা

পরই ভেঙে পড়েছে। একদিন পরই উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নেতৃত্বে আবার নতুন করে উঠল উর্মিলার ঘর। এ

ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার সকালে তালতলী উপজেলার করইবাড়ীয়া ইউনিয়নের বেহেলা গ্রামে। উর্মিলা (৭০) মৃত

রাজেস্বরের স্ত্রী। জানা যায়, উর্মিলা ভূমিহীন ও গৃহহীন হওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহারের একটি পাকা ঘর

পেয়েছেন। গত কয়েক দিন ধরে চলছে সেই ঘর নির্মাণের কাজ। কিন্তু কাজ শেষ হতে না হতেই কারিগরি ত্রুটির

কারণে বুধবার সকালে ভেঙে পড়েছে সেই ঘরের একটি দেয়ালের কিছু অংশ। স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন,

রাজমিস্ত্রিদের অবহেলার কারণে ও তড়িঘড়ি করে দেয়াল নির্মাণ করতে গিয়ে এমনটি হয়েছে। মিস্ত্রিরা মাটির গভীরে না

গিয়ে হালকা মাটির উপর দেয়াল করতে গিয়ে মাটি সরে গিয়ে দেয়াল ভেঙে পড়েছে। সরকারি সিডিউল অনুযায়ী ঘর

নির্মাণ করলে এভাবে ভেঙে পড়ার কথা না। স্থানীয়রা এ জন্য উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তাকে দুষলেন। এ ঘটনায়

উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা (পিআইও) রুনু বেগম সাংবাদিকদের কাছে বিষয়টি এড়িয়ে যান। উপজেলা নির্বাহী অফিসার

আসাদুজ্জামান গণমাধ্যমকে বলেন, বিষয়টি আমি জেনে শুক্রবার সকালে ঘটনাস্থলে যাই। তখন তালতলী উপজেলা

চেয়ারম্যান রেজবি উল কবির ছিলেন। আমি জেনেছি কারিগরি ত্রুটির কারণে সামান্য দেয়াল ভেঙে পড়েছে। আমি ও

উপজেলা চেয়ারম্যান দাঁড়িয়ে থেকে আবার সুন্দর করে দেয়াল নির্মাণ করে দিয়েছি। এ ঘরটি একটু বিচ্ছিন্ন এলাকায়

হওয়ায় সার্বক্ষণিক দেখাশোনা করতে না পারায় মিস্ত্রিরা সামান্য ভুল করেছে। উর্মিলা এখন অনেক খুশি। ইউএনও

বলেন, উর্মিলা একটি গভীর নলকূপের দাবি করেছেন। আমি সেটি দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছি। আমরা চাই নির্ভুলভাবে

প্রধানমন্ত্রীর প্রকল্প বাস্তবায়ন হোক। উর্মিলা বলেন, এহন মুই খুশি। মোগো স্যারে কইছে মোরে একটা পানির কল দিবে।

আমি এহন শান্তিতে থাকতে পারমু। কেন ঘর ভাংছে হে মুই কইতে পারমু না। তয় একটা কিছু হইছিল। স্যারে নিজে

খারাইয়া কাম করাইছে। এইবার অনেক ভালো হইছে। মুই খুশি হইছি। এ ব্যাপারে বরগুনার জেলা প্রশাসক হাবিবুর

রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, কারিগরি ত্রুটির জন্য দেয়াল ভেঙে পড়তে পারে। তালতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার

সেখানে গিয়েছেন। তিনি আমাকে রিপোর্ট করবেন। আমি যতটুকু জেনেছি কারিগরি ত্রুটির জন্য একটি দেয়ালের কিছু অংশ ভেঙেছে। তা আবার নতুন করে করা হয়েছে।

You might also like