মধু ভেজাল না খাঁটি? যেভাবে চিনবেন... - সোনার-বাংলা

মধু ভেজাল না খাঁটি? যেভাবে চিনবেন…

মধু ভেজাল না খাঁটি? যেভাবে চিনবেন…

মধু সকলেরই পছন্দ। কারণ মধুর উপকারিতা অনেক। সৌন্দর্য চর্চা, রোগ প্রতিরোধ কিংবা ডায়েটের জন্য মধু মধুরতর

গুণে গুণান্বিত। কিন্তু বাজারে নকল মধুর ভীড়ে আসল মধু চেনা দায়। আর নকল দিয়ে কী আর আসলের কাজ হয়?

তবে নকল মধু চেনার খুব সহজ কিছু উপায় অবশ্য রয়েছে। জেনে নিন। * আসল মধু ঘন ও অনেক বেশি আঠালো

হয়, অপরদিকে নকল মধু হয় পাতলা ও কম আঠালো। তাই হাতের আঙুলে একটু মধু নিয়ে তা ঘন কিনা, বুঝে নিতে

পারেন। কম ঘন ও কম আঠালো হলে নিশ্চিত থাকতে পারেন তা নকল। * এক গ্লাস পানিতে এক চামচ পরিমাণ মধু

দিন। তার পর আস্তে আস্তে গ্লাসটি নাড়া দিন। মধু পানির সঙ্গে মিশে গেলে নিশ্চিত হবেন সেটা ভেজাল মধু। আর মধু

যদি ছোট পিণ্ডের মতো গ্লাসের পানিতে ছড়িয়ে যায়, তা হলে বুঝবেন সেটি খাঁটি মধু। * মধু চেনার অন্যতম উপায়

হচ্ছে, ফেনা। আসল মধুতে ফেনা হয় না। নকল মধুতে ফেনা হয়। কিছুটা মধু নিয়ে তাতে অল্প পানি ও দুই থেকে তিন

ভিনেগার মেশান। যদি ফেনার মতো কিছু তৈরি হয়, তাহলে মধুটি নকল। * নকল মধু চেনার আরেকটা সহজ উপায়

হচ্ছে, নকল মধুতে সহজে আগুনে ধরে না কিন্তু আসল মধুতে দ্রুত আগুন ধরে। একটু তুলো মধুতে ভিজিয়ে ম্যাচ

দিয়ে তুলোটিতে আগুন ধরান। যদি দ্রুত আগুন না ধরে তাহলে বুঝবেন মধুটি নকল। * বেশ কিছুদিন ঘরে রেখে দিলে

মধুতে চিনি জমতেই পারে। কিন্তু বয়ামসহ মধু গরম পানিতে কিছুক্ষণ রেখে দেখুন, এই চিনি গলে মধু আবার স্বাভাবিক

হয়ে আসবে। কিন্তু নকল মধুর ক্ষেত্রে এটা হবে না। * এক টুকরো ব্লটিং পেপার নিন, তাতে কয়েক ফোঁটা মধু দিন। যদি

কাগজ তা সম্পূর্ণ শুষে নেয়, বুঝবেন মধুটি খাঁটি নয়। * এক টুকরো সাদা কাপড়ে মধু মাখান। আধ ঘণ্টা রাখুন।

তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। যদি দাগ থেকে যায়, বুঝবেন মধুটি খাঁটি নয়।আরো পরুনঃবমি করে দেড় লাখ টাকা

ছিনতাইকালে যুবক আটক!গাজীপুরের শ্রীপুরে বমির বান ধরে অভিনবভাবে প্রতারণা করে দেড় লাখ টাকা ছিনিয়ে

নিতে গিয়ে মোঃ লিটন (৩৫) নামের এক যুবক আটক হয়েছেন। শনিবার (৬ ফেব্রুয়ারী) দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে

পৌর এলাকার মাওনা চৌরাস্তায় (ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের উড়ন্ত সেতুর পাশে) এ ঘটনা ঘটে। আটক লিটন

ময়মনসিংহের কোতোয়ালি থানার পাটগুদাম গ্রামের দুলাল হোসেনের ছেলে। মাওনা হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত

কর্মকর্তা (ওসি) এ আর এম আল মামুন যায়যায়দিনকে জানান, সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিন সুনামগঞ্জ থানার শেজনি

এলাকার সেলিম রেজা নামের এক ঠিকাদার ভেকু ভাড়া নিতে স্কয়ার মাস্টারবাড়ী এলাকায় যান। কাজ শেষে ঢাকাগামী

একটি বাস যোগে ফেরার সময় মাওনা চৌরাস্তা এলাকায় পৌঁছা মাত্রই তার সিটের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা লিটন নামের

জনৈক ব্যক্তি বমি শুরু করে। এসময় লিটনের সাথে থাকা কয়েকজন তাকে ধরাধরি করে সেলিম রেজাকে উঠিয়ে তার

সিটে বসাতে থাকে। একপর্যায়ে বমির বান ধরে সকলের দৃষ্টি নিজের দিকে রাখে লিটন। এসময় তার সাথে থাকা দুজন

সেলিম রেজার পকেট থেকে দেড় লাখ টাকা নিয়ে সুযোগ বুঝে সটকে পড়ে। টাকা নেয়ার বিষয়টি আঁচ করতে পেরে

বাস থামিয়ে দৌড়ে তিনজনকে আটক করেন সেলিম রেজা ও তার সাথের লোকজন। কিন্তু রাস্তা পার হওয়ার কথা বলে

তাদের মধ্যে দুজন ৫০ হাজার টাকা নিয়ে আরেকটি চলন্ত বাসে উঠে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে মাওনা হাইওয়ে পুলিশ

ঘটনাস্থলে পৌঁছে। এসময় লিটনকে আটক করা হলে তার কাছ থেকে ১ লাখ টাকা উদ্ধার হয়। ওসি আল মামুন আরও

জানান, টাকার মালিক সেলিম রেজা বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়েরের পর আটক লিটনকে শ্রীপুর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

You might also like