বিয়ের জন্য বেসরকারি চাকরি ছেড়ে বিসিএস ক্যাডার! - সোনার-বাংলা

বিয়ের জন্য বেসরকারি চাকরি ছেড়ে বিসিএস ক্যাডার!

প্রতিবার চাকরির ছুটিতে বাসায় আসলে মা আমার বিয়ে নিয়ে তাড়াহুড়ো শুরু করেন। কিন্তু গত এক বছরে নয়টা মেয়ে দেখার পরও আমার বিয়ে হয়নি। হয়তবা আমার বিয়ের ফুল ছাগলে খেয়ে ফেলছে। তাই সেটা ফোঁটার আর সম্ভাবনা নেই এবং আমার বিয়ে হওয়ারও সম্ভাবনা নেই।এবারও মায়ের অনুরোধে জীবনের শেষ চিকিৎসার মত শেষ মেয়েটাকে বিয়ে করার উদ্দেশ্যে দেখতে গেলাম।

মেয়েটা অনার্স প্রথম বর্ষে পড়ে। বাবা মা তাকে বিয়ে দিয়ে দেবে। কারণ তাদের

গ্রামে নাকি মেয়ে-ছেলে পালানোর হিড়িক পড়ে গেছে। বাবা মায়ের মুখে চুনকালি মাখানোর আগে তাদের মেয়ের বিয়ে দিতে চাচ্ছেন তারা। যদিও আমি যাকে দেখতে গিয়েছি সে কোন সম্পর্ক করেনা। কিন্তু খারাপ মানুষের কর্মের ফলাফল মানুষের মনে অনেক সময় ভাল মানুষের প্রতি সন্দেহের সৃষ্টি করে। তাই খারাপ কিছু করার আগেই তাদের মেয়ের বিয়ে দেওয়া চাই।মেয়ে দেখতে গেলাম।

মেয়ে দেখলাম, মাশাল্লাহ, অনেক সুন্দর চেহারা। যদিও আমি সুন্দর চেহারায় বিশ্বাসী না, সুন্দর মনে বিশ্বাসী।

কারণ একটা সময় চেহারার সুন্দরের জৌলুস হারিয়ে যাবে। মনের সৌন্দর্যটা সারাজীবন থাকবে। আর সংসার করার জন্য চেহারার সৌন্দর্যের চেয়ে মনের সৌন্দর্যকে গুরুত্ব দেওয়া উচিত। তাহলে সংসার জীবনে সুখ পাওয়া যায়। এখানে সব কিছুই ঠিকঠাক হল কিন্তু সাধ বাধলো আমার পেশা নিয়ে। মেয়ের বাবা সরকারি প্রাইমারি স্কুলের সহকারি শিক্ষক, তার বড় ভাই সেনাবাহিনীতে চাকরি করে। পরিবারের প্রায় সবাই সরকারি চাকরি করে। কিন্তু আমিতো প্রাইভেট চাকরি করি। স্যালারি

অবশ্য ভালই দেয়, প্রায় পঁয়চল্লিশ হাজারের কাছাকাছি। কিন্তু সেটা দিয়ে কী হবে? মেয়ের বাবা মা মনে করেন প্রাইভেট চাকরিতে কোন সিকিউরিট নেই, যখন তখন চলে যেতে পারে। আর চাকরিচ্যুত হলে তার মেয়েকে কিভাবে ভরণপোষণ করবে তার জামাই।

তাই মেয়ে আমার পছন্দ হওয়া সত্ত্বেও মেয়ের বাবা মা না করে দিলেন সরকারি চাকরি না থাকার কারণে। এই নিয়ে এগারো বারের মত হৃদয়ের ছোট ছোট স্বপ্নগুলো ভেঙ্গে গেল আমার। ভাবছি আর কোন মেয়েই দেখবনা বিয়েও করবনা।

প্রথমবার হৃদয়টা ভেঙেছে আমার এক্স গার্লফ্রেন্ড। আমরা তিন বছরের মত সম্পর্ক করেছিলাম। সম্পর্কের শুরুতে সে একটা কথা বলছিল আমায়, ‘তুমি যদি বিসিএস ক্যাডার না হতে পারো তবে আমার বাবা মা তোমায় মেনে নেবেনা।

‘ঠিক তাই হল। তার বাবা আমাকে মেনে নিলেননা, এক্সের বিয়ে হয়ে গেল কোন এক এডমিন ক্যাডারের সঙ্গে। তারপর যেটুকু ইচ্ছে ছিল সরকারি চাকরি করার সেটাও হারিয়ে ফেলছি। যার জন্য সরকারি চাকরির প্রস্তুতি নিচ্ছি সেইতো নেই। তো পড়াশোনা করে

You might also like